তামাকের কর ও মূল্যবৃদ্ধিতে ভোলায় মানববন্ধন

সৌরব [ভোলা]

টোব্যাকো অ্যাটলাস ২০২০ সালের গবেষণা অনুযায়ী, ধূমপান ও তামাক পণ্য ব্যবহারের কারণে বাংলাদেশে প্রতি বছর ১ লক্ষ ৬১ হাজারেরও বেশি মানুষ মৃত্যুবরণ করে। এছাড়াও ধূমপান ও তামাক সৃষ্ট রোগে অসুস্থ হয় হাজার হাজার মানুষ। সুতরাং তামাকের এই স্বাস্থ্যক্ষতি থেকে জনগণকে রক্ষা করতে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধিতে ভোলা প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছেন ডরপ।

আজ (৩১ মে) মঙ্গলবার ২০২২ ভোলার সিএসও,মাদার পার্লামেন্ট সদস্য, যুব গ্রুপ এবং সুশীল সমাজের সদস্যবৃন্দ বাংলাদেশের প্রথম সারির বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন অব দ্য রুরাল পুয়র (ডরপ) এর সহযোগিতায় ভোলা প্রেস ক্লাবের সামনে নীতি নির্ধারকদের কাছে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করার দাবি জানিয়ে একটি মানব বন্ধন আয়োজন করা হয়।

ডরপ ভোলার অ্যাডভোকেসি অফিসার তরুন কান্তি দাশ এর পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী সকল সদস্যবৃন্দ নীতি নির্ধারকদের কাছে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করার দাবি জানান। উক্ত মানব বন্ধনে উপস্থিত প্রধান অতিথির বক্তব্যে সহ-সভাপতি সিএসও অধ্যাপক মো: রুহল আমীন জাহাঙ্গীর বলেন, তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করা হলে সরকাররে রাজস্ব আয় প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা বৃদ্ধি পাবে এবং তরুণ ধূমপানকারীর সংখ্যা কমে আসবে।

তিনি আরো বলনে, আজকরে যুব সমাজ ইচ্ছাশক্তীর বলে নানা ধরনের ইতিবাচক কাজ করে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় পরমিণ্ডলে অবদান রাখছে।

আমি আশা করি আজকের মানবন্ধনে উপস্থিত যুবকরা তামাক বিরোধী আন্দোলনকে আরো বেগবান করবে এবং তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধির বিভিন্ন কার্যকলাপ নীতিনির্ধারকদের কাছে তাদের দাবি সমূহ তুলে ধরবে।

ভোলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক সে সময় বক্তব্য রাখেন। সে সময় বক্তারা বলেন সকল ধোঁয়াহীন তামাকপণ্য উৎপাদনকারীকে নিয়মের আওতায় নিয়ে আসা গেলে এবং সকল তামাকপণ্য অভিন্ন পরিমাপে (শলাকা সংখ্যা এবং ওজন) প্যাকটে/কৌটায় বাজারজাত করা সম্ভব হবে এবং জনস্বাস্থ্যে বিরাট একটি ইতিবাচক পরিবর্তন দেখা যাবে।তামাক জনিত রোগে অক্রান্ত হওয়া রোগী এবং নতুন ধূমপায়ীর সংখ্যাও কমে আসবে।

সেই সংঙ্গে আমাদের দাবি নীতি নির্ধারকদের কাছে যে আসন্ন বাজটে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করতে হবে।

সিএসও সদস্য ও সম্পাদক ভোলার বাণী মো:মাকসুদুর রহমান বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, আমাদের অধিকাংশ ভোলাবাসী ধূমপান ও তামাক ব্যবহার স্বাস্থ্যের ক্ষতির বিষয়ে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করা হলে সরকাররে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে এবং নতুন তরুণ ধূমপানকারীর সংখ্যা কমে আসব।

ডরপ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী ইয়ুথ ফোরামের সদস্যরা তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি করনে অবদান রাখতে বিভিন্ন জনসচতেনতামূলক এবং কার্যক্রম করার শপথ গ্রহণ করে এবং তাদের দাবি জাতীয় নীত নির্ধারকদের পর্যায়ে পৌছানোর অঙ্গকিার ব্যক্ত করা হয়।

উল্লেখ্য, ডরপ এর সহযোগিতায় আয়োজিত এ মানব বন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন যুব কমিটির সদস্য,সিএসও,মা-সংসদ সদস্য বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যবৃন্দ, ভোলা প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.