ভোলায় অর্ধশতাধিক বছরের পুরনো কবরে অক্ষত লাশ!

ভোলা বার্তা, মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি ।।

বুধবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার হাজীরহাট ইউনিয়নের চরজ্ঞান গ্রামে অবস্থিত সাবেক চেয়ারম্যান আ. লতিফ ভূইয়ার বাড়ি জামে মসজিদ সংলগ্ন গোরস্থানের নদী ভাঙনের জায়গা থেকে এ অক্ষত লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, মসজিদ সংলগ্ন গোরস্থানটি বেশিরভাগ অংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। মসজিদটিও অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা চলছে। বুধবার ফজরের নামাজের পর মুসল্লিরা অক্ষত লাশটি দেখতে পান। পরে কবর খুঁড়ে লাশটি উপরে তুলে আনেন স্থানীয়রা।

লাশটি দেখে সবাই হতবাক হয়ে যান। লাশের পরনের কাপড়টি ধবধবে সাদা। বাঁধনসহ পুরো কাপড়টি এখন্ও শক্ত, মনে হয় যেন একদম নতুন।

স্থানীয় বাসিন্দা মনোয়ারা বেগম মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. ছালাউদ্দিন বলেন, আমি কবর খুঁড়ে লাশটি উপরে তোলায় সাহায্য করেছি। আল্লাহতায়ালার কী রহমত, কবরের ভেতর গাছ-গাছালির অসংখ্য শিকড় থাকলেও লাশের গায়ে কোনো আঘাত বা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করেনি।

এদিকে অক্ষত লাশ পাওয়ার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শত শত উৎসুক মানুষ ওই মসজিদ প্রাঙ্গনে এসে ভিড় করেন।

ছবিঃ জামে মসজিদ সংলগ্ন গোরস্থানের নদী ভাঙন এলাকা

স্থানীয়দের ধারণা, এ লাশ ৫০ বছরের অধিক সময়ের পুরনো হবে। পরে উত্তোলন করা এই লাশটিকে স্থানীয় উত্তর চর যতিন জামে মসজিদ সংলগ্ন গোরস্থানে পুনরায় দাফন করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অভিব্যক্তি ব্যক্ত করে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

মাওলানা মো. ইউনুস তার ফেসবুক টাইমলাইনে লিখেছেন, মনপুরা উপজেলাধীন হাজীরহাট ইউনিয়নের অধীনে চরজ্ঞান মসজিদের কাছে একটি লাশ দেখা যায়। ধারণা করা হচ্ছে, ৭০ বছরের পুরনো কবর। কাপড় যে রকম ছিল, অবিকল সেরকম ছিল। গায়ে কোনো দাগ নেই, এটা ঈমানের আলামত।

মো. আইয়ুব আলী লিখেছেন, আল্লাহর গোলাম কবরে গেলেও ঘুমায়, কোনো জিনিস স্পর্শ করতে পারে না। আল্লাহ যেন তাদের মাঝে আমাদেরও কবুল করে নেন, আমিন।

ভূইয়ার বাড়ি মসজিদের ইমাম মাওলানা আমিমুল ইহসান জসিম বলেন, নেক্কার বান্দাদের আল্লাহ যে হেফাজত করেন এটা তার জ্বলন্ত উদাহরণ।

আপনার মন্তব্য জানান