ভোলায় ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ নারীকে কুপিয়ে জখম করলো মাদকসেবী

ভোলায় এক নারীকে ইভটিজিং করার সময় বাধাঁ প্রদান করায় ৩নারীকে কুপিয়ে জখম করেছে মাদকসেবী বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভোলা পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের পাখির পোল এলাকায় এঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যাক্ষদর্শীসূত্রে জানায়, আবু সফিয়ানের ছেলে মুকুল প্রকাশ্যে মাদক সেবন করে আসছে দীর্ঘদিন। মাদকসেবী মুকুলের বাবা মুক্তিযোদ্ধা থাকায় কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা। বিভিন্ন সময়ে মাদক সেবন করে মাতাল থাকে। রাস্তাঘাটে মেয়েরা হাটতে চলতে পারেনা। এছাড়াও মাঝে মধ্যে কু-প্রস্তাবও মেয়েদের দিচ্ছে। এরই ধারবাহিকতায় ফাতেমা আক্তার নিশু নামে নারীকে প্রকাশ্যে উত্ত্যাক্ত করে এর প্রতিবাদ করলে মাদকসেবী দেশীয় অ¯্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এক পর্যায়ে ফাতেমার আক্তার নিশুর সাথে থাকা আরো দুই নারীকেও কুপিয়ে জখম করে বখাটে মুকুল। পরে আহতদের মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আহত ফাতেমা আক্তার নিসু সাংবাদিকদের বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ী মুকুল উত্যক্ত করে আসছে। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা হওয়াতে কেউ প্রতিবাদ করছেনা। মুক্তিযোদ্ধা সাইনবোর্ড ব্যবহারে মাদকসেবন এবং এলাকার মধ্যে প্রকাশ্যে মাদক ও ব্যবসা করছে। মাদকসেবী মুকুল অশ্লিল বাক্য ও আচারণ করছে। তারই ধারাবাবাহিকতায় সকাল ১০টায় দেশীয় ধারালো অ¯্র দিয়ে আমাদের তিনজনকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রেখে যায়। এরপর এলাকার লোকজন হাসপাতালে নেয়। এঘটনার একপর্যায় নিসুর ডাক চিৎকার ফাতেমা আক্তার নিসুকে বাচাতে এগিয়ে আসলে অভিযুক্ত মুকুলে পিতা আবু সুফিয়ান,তাহার বোন মুক্তা(৩০)স্বামী কামরুল ইসলাম এবং মুকুলের স্ত্রী মুন্নি একত্রিত হইয়া ধারালো দেশীয় অ¯্র দিয়ে এলপাথারি কুপিয়ে জখম করারও অভিযোগ পাওয় যায়। পাশাপাশি ভিকটিমের মা হাজেরা বেগম(৭৫) বাধা প্রদান করলে তাহাকেও লাঠি ধারা বেধরক মারধর করে হামলাকারীরা। মাদকসেবী অভিযুক্ত মুকুল ওই এলাকার বাসিন্দা আবু সুফিয়ানের ছেলে মুকুল(৩৮)।

আপনার মন্তব্য জানান