একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট শরিকদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগিতে শেষ পর্যায়ে পৌঁছেছে বিএনপি

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ শনিবার দিনভর বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে বৈঠকের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোকে ১৯টি আসন বিএনপির ছেড়ে দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে এখনো কয়েকটি আসন নিয়ে গণফোরামের সঙ্গে তাদের দর কাষাকষি চলছে।

গণফোরামের পাঁচজন নেতাকে ধানের শীষ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়েছে। অপরদিকে জামায়াতে ইসলামীর ১৭ জন নেতার জোটের প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি ইতোমধ্যে ঠিক হয়েছে বলে দলটির নেতারা জানিয়েছেন। এর বাইরে আরও কয়েকটি আসন তাদের ভাগে জুটবে বলে আশা করছেন জামায়াত নেতারা।

জামায়াত বাদে ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলোকে ১৬টি আসন ছেড়েছে বিএনপি।

এখন পর্যন্ত সর্বশেষ হিসেবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক জেএসডিকে পাঁচটি, গণফোরামকে পাঁচটি, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগকে তিনটি, নাগরিক ঐক্যকে পাঁচটি এবং জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়াকে একটি আসন দেওয়া হয়েছে।

আর ২০ দলীয় জোটের মধ্যে বিজেপি একটি, খেলাফত মজলিশ দুটি, এলডিপি পাঁচটি, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) দুটি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম তিনটি, এনপিপি একটি ও পিপিবিকে একটি আসন ছেড়েছে বিএনপি।

মনোনয়নের পূর্ণাঙ্গ তালিকা রোববার নির্বাচন কমিশনে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা ‘ধানের শীষ’ প্রতীক নিয়ে এই নির্বাচনে লড়বেন। ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরাও ধানের শীষ প্রতীকেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। নিবন্ধনহীন জামায়াত নেতারা ধানের শীষের প্রত্যয়ন নিয়েই মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জোটের মধ্যে শুধু এলডিপির চেয়ারম্যান অলি আহমেদ নিজ দলের ‘ছাতা’ প্রতীকে ভোট করবেন।

চূড়ান্ত মনোনয়ন পেলেন যারা

জেএসডি:  আ স ম আবদুর রব (লক্ষ্মীপুর-৪), আবদুল মালেক রতন (কুমিল্লা-৪), শহিদউদ্দিন মাহমুদ স্বপন (ঢাকা-১৮), সাইফুল ইসলাম (কিশোরগঞ্জ-৩), নুরুল ইসলাম (শরীয়পুর-১)।

কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ: কাদের সিদ্দিকীর মেয়ে কুঁড়ি সিদ্দিকী (টাঙ্গাইল-৮) ও টাঙ্গাইল-৪ আসনে রফিকুল ইসলাম, গাজীপুর-৩ আসনে ইকবাল সিদ্দিকী।

গণফোরাম: মোস্তফা মহসিন মন্টু (ঢাকা-৭), এএইচএম খালেকুজ্জামান (ময়মনসিংহ-৮), রেজা কিবরিয়া (হবিগঞ্জ-১), অধ্যাপক আবু সাঈয়িদ (পাবনা-১), আমসা আমিন (কুড়িগ্রাম-২)

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া: সুলতান মো. মনুসর আহমেদ (মৌলভীবাজার-২)।

নাগরিক ঐক্য: মাহমুদুর রহমান মান্না (বগুড়া-২), এস এম আকরাম (নারায়ণগঞ্জ-৫), শাহ রহমত উল্লাহ (রংপুর-১), মোফাখারুল ইসলাম (রংপুর-৫), নুরুর রহমান জাহাঙ্গীর (বরিশাল-৪)।

২০ দলীয় জোট:

বিজেপি: ঢাকা-১৭ আসনে আন্দালিব রহমান পার্থ।

এনপিপি: নড়াইল-২ আসনে ফরিদুজ্জামান ফরহাদ।

পিপিবি: রংপুর-৩ আসনে রিটা রহমান।

কল্যাণ পার্টি: চট্টগ্রাম- ৫ আসনে কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম।

এলডিপি: চট্টগ্রাম- ১৪ আসনে এলডিপির অলি আহমেদ, চট্টগ্রাম-৭ আসনে মো. নুরুল আলম, কুমিল্লা-৭ আসনে রেদোয়ান আহমেদ, লক্ষ্মীপুর-১ আসনে সাহাদাত হোসেন সেলিম, ময়মনসিংহ-১০ আসনে সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ।

খেলাফত মজলিশ: হবিগঞ্জ-৪ আসনে আহমেদ আবদুল কাদের ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে মুফতি মুনির হোসেন।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম: সুনামগঞ্জ-৩ আসনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামীর শাহিনুর. পাশা, হবিগঞ্জ-২ আসনে আবদুল বাসিদ আজাদ, যশোর-৫ আসনে মুফতি মোহাম্মদ ওয়াক্কাস।

জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর):  গাইবান্ধা-৩ আসনে টিআই ফজলে রাব্বী, কুষ্টিয়া-২ আসনে আহসান হাবিব লিংকন।

জামায়াত ইসলামীর আসনের বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে এখনো কোনো কিছু বলা হয়নি। তবে জামায়াতের শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২৪টি আসন তাদের দেওয়া হবে বলে আশা করছেন তারা।

এখন পর্যন্ত জামায়াত ইসলামীর যে ১৭ জন নেতার মনোনয়ন চূড়ান্ত হয়েছে তারা হলেন- ঢাকা-১৫ আসনে ডা. শফিকুর রহমান, সিরাজগঞ্জ-৪ আসনে রফিকুল ইসলাম খান, খুলনা-৬ আসনে আবুল কালাম আজাদ, কুমিল্লা-১১ আসনে সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, খুলনা-৫ আসনে মিয়া গোলাম পারোয়ার, চট্টগ্রাম-৭ আসনে শামসুল ইসলাম, কক্সাবাজার-২ আসনে হামিদুর রহমান আযাদ, সিলেট-৫ আসনে ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট-৬ আসনে হাবিবুর রহমান, ঠাকুরগাঁও-২ আসনে আবদুল হাকিম, দিনাজপুর-১ আসনে আবু হানিফ, দিনাজপুর-৬ আসনে আনোয়ারুল ইসলাম, নীলফামারী-৩ আসনে আজিজুল ইসলাম, গাইবান্ধা-১ আসনে মাজেদুর রহমান, সাতক্ষীরা-২ আসনে মুহাদ্দিস আবদুল খালেক, সাতক্ষীরা-৪ আসনে গাজী নজরুল ইসলাম এবং পিরোজপুর-১ আসনে শামীম সাঈদী।

এছাড়া বাগেরহাট, পাবনা ও যশোরের কয়েকটি আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জামায়াত নেতারা।

জামায়াতসহ ২০ দলকে কতটি আসন ছাড়া হয়েছে জানতে চাইলে জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান বলেন, “আসন ভাগাভাগির আলোচনা চলছে, শেষ না হলে বলাটা ঠিক হবে না।”

অপরদিকে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু রাতে গুলশানের কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ে সাংবাদিকদের বলেন, “আসন বণ্টন নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই। আমরা বলেছি, যারা জনপ্রিয় ও যোগ্য তাদেরকেই আসন দেওয়া হোক।”

গণফোরাম কয়টি আসন পেয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমরা ১০/১২টা আসন চেয়েছি। এখন কতটা দেবে সেটা বিএনপির ওপর ছেড়ে দিয়েছি। কালকে ভোরে এসে আমরা চিঠিগুলো নিয়ে যাব।”

সর্বশেষ ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ২৫৯টি আসনে এককভাবে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেয়।ওই নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীসহ চারদলীয় জোটের শরিকদের ৪১টি আসন ছেড়েছিল তারা।

আপনার মন্তব্য জানান