লঞ্চ কর্তৃপক্ষের অবহেলায় চরফ্যাসনে লঞ্চ থেকে পড়ে যাত্রী নিখোঁজ

ভোলার চরফ্যাসনে লঞ্চ কর্তৃপক্ষের অবহেলায় যাত্রীবাহী লঞ্চ থেকে পড়ে এক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন।

 

বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার বেতুয়া লঞ্চ ঘাটের মেঘনা নদীতে এ ঘটনা ঘটে। নিখোঁজ ওই যাত্রীর নাম হানিফ(৬৫)। সে জিন্নাগড় ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

 

পরিচয় জানা যায়নি। প্রত্যক্ষদর্শীরা ওই যাত্রীর পানিতে ডুবে মৃত্যুর আশংকা করছেন।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল ৫টার দিকে বেতুয়া ঘাট থেকে এমভি ফারহান-৫ লঞ্চটি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছিল। এসময় ফারহান লঞ্চটি কর্ণফুলী-১২ লঞ্চটিকে অতিক্রম করার সময় কর্ণফুলী লঞ্চের পিছন দিক দিয়ে এক যাত্রী ফারহান লঞ্চে উঠার সময় নদীতে পড়ে যায়। এসময় ওই যাত্রী নদীর স্রােতে ভেসে যাওয়ার সময় হাত উচিয়ে বাঁচার আকুতি জানালেও ঘাটে অবস্থানরত কর্ণফুলী-১২ কিংবা ছেড়ে যাওয়া ফারহান-৫ লঞ্চের লোকজন তাকে ভেসে যেতে দেখেও কেউ উদ্ধারে এগিয়ে আসেনি। প্রায় ১০মিনিট পর যাত্রীদের তোপের মুখে ছেড়ে যাওয়া ফারহান লঞ্চটি থেকে রশি বেঁধে একটি বয়া নিক্ষেপ করলেও ততক্ষণে পানিতে পড়ে যাওয়া ওই ব্যাক্তি ডুবে যায়।

 

 

 

প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, সঠিক সময়ে দুই লঞ্চের যে কোন একটি থেকে বয়া নিক্ষেপ করলে তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হতো।

 

চরফ্যাসন ফায়ার সাভির্সের ষ্টেশন অফিসার মো. ইমরান হোসেন বলেন, সন্ধ্যা ৭টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের তথ্যের ভিত্তিতে আমরা বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে এসেছি। সঠিক সময়ে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আমাদেরকে জানালে হয়তোবা তাকে উদ্ধার করা যেতো। তার পরও আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

 

চরফ্যাসন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রুহুল আমিন বলেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। ফায়ার সার্ভিস কর্র্মীরা ঘটনা স্থলে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.