আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চরফ্যাশনে আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে বহুতল ভবন নির্মানের অভিযোগ

ভোলার চরফ্যাশনে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আওয়ামী লীগনেতার বিরুদ্ধে বহুতল পাকা ভবন নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ মনকি পৌরসভা থেকেভবন নির্মাণের জন্য কোনো নকশা ও অনুমোদন নেয়নি তিনি।

বহুতল ভবনটি নির্মাণ হচ্ছে চরফ্যাশন পৌরসভার প্রাণকেন্দ্র চরফ্যাশন বাজারে। ওই জমিনিয়ে গত ২৬ ফেব্রুয়ারী মো.দেলোয়ার হোসেনসহ ২৮ জন জমির প্রকৃত মালিক মহব্বতআলী বেপারীর ওয়ারিশ (নাতি-নাতনি) আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলার আলোকেআদালত জমির উপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

চরফ্যাশন পৌরসভার মেয়র বাদল কৃষ্ণ দেবনাথ বলেন, ভবনটি নির্মাণের জন্য আবেদনকরেছেন চরফ্যাশন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি নুরুল ইসলাম নান্নু।কিন্তু ভবনের নকশার এখনও অনুমোদন হয়নি। অনুমোদন ছাড়াই কেনো ভবন নির্মাণকরছেন তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মামলার এজাহার, জমির দলিল ও মৌখিক অভিযোগে জানা যায়, ভোলার চরফ্যাশনউপজেলার জিন্নাগড় মৌজার (চরফ্যাশন বাজার) ৫৫১ নম্বর খতিয়ানের ১ দশমিক ৫৬শতাংশ জমি ১৯৪৮-৫৯ সালে ভুমি অফিস উপজেলার উত্তর মাদ্রাজ গ্রামের বাসিন্দামোহাব্বত আলী বেপারীকে বন্দোবস্ত দেয়। জমিটি চরফ্যাশন বাজারের চান্দিনা ভিটা।বর্তমান মূল্য কমপক্ষে দেড় কোটি টাকা। ওই জমিতে ঘর তুলে মোহাব্বত আলী বেপারীচুক্তিপত্র ছাড়াই মতিউর রহমান দফাদারকে ভাড়া দেন। হঠাৎ ১৯৫৪ সালে মোহাব্বাতআলী বেপারী মারা যান। পরবর্তীতে স্বাধীনতা যুদ্ধে রাজাকার হিসাবে চিহ্নিত মতিউররহমান দফাদার মারা গেলে দোকান পরিচালনা করেন তার ছেলে আবু তাহের। আবুতাহেরের কাছ থেকে দোকানের মালিকানা পরিবর্তন হয়ে মালিক হয় বর্তমান চরফ্যাশনআওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি নুরুল ইসলাম। এর পর থেকে মোহাব্বত আলীবেপারীর ওয়ারিশরা দোকানের যায়গা দাবি করলে তাদেরকে কিছু দিন ভাড়া দিয়ে আসলেওএক সময় ভাড়া দেওয়া বন্ধ করে দেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিবাদ চলমান ছিল।সম্প্রতি ওই জমিতে নুরুল ইসলাম আসপাশের দোকান মালিকদের নিয়ে বহুতল পাকাভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন। এ ঘটনায় বাদিপক্ষ চরফ্যাশন সিনিয়র সহকারী জজআদালতে নির্মাণ কাজের নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা করে। আদালত গত ২৬ ফেব্রুয়ারী ওইজমির উপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন। কিন্তু নুরুল ইসলাম আদালতের নিষেধাজ্ঞাঅমান্য করে নির্মাণ কাজ  চালিয়ে যাচ্ছেন।

বাদিপক্ষ আরও বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞার কাগজ চরফ্যাশন থানা পুলিশকে দেখালেপুলিশ গত বৃহষ্পতিবার নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। কিন্তু পরের দিন নুরুল ইসলাম নান্নুক্ষমতার প্রভাবে আবারও কাজ চালু করেন। জানা যায়, নুরুল ইসলাম পক্ষ শ্রমিক নিয়েপ্রকাশ্যে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এমনকি বাজারের মেইন সড়ক দখল করে মালামাল ওশ্রমিক থাকার ঘর নির্মাণ করেছেন এবং সড়কের ওপর ইট-বালু ও রড রেখেছেন। এতেলোকজনের যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে।

চরফ্যাশন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি নুরুল ইসলাম নান্নু মিয়া বলেন, গত ৫০ বছর ধরে এ জমি আমার দখলে। হঠাৎ করে আমাকে অযথা ভোগান্তির মধ্যেফেলার জন্য মো. ফারুক বেপারী আদালতে মামলা করেছে। রোববার আদালতে শুনানীহয়েছে। আদালত স্থিতাদেশ দিয়েছেন কিনা জানিনা। আমি ১৯৭৫সাল থেকে এ জমিরদখলে আছি।

তিনি আরও বলেন, জমিটি আমি ১০-১২ দিন আগে কাজ শুরুকরেছি। জমির মালিকমহব্বত আলী বেপারী জনৈক আবু তাহের পক্ষের নিকট ১৯৫৫ সালে বিক্রি করেছেন।আমি আবু তাহেরের ছেলে মো. জাকির হোসেন ও স্ত্রী বিবি তহুরা বেগমের নিকট সাড়ে ৮৪সহ¯্রাংশ জমি কিনেছি। এ দাগে আরও ৭২সহ¯্রাংশ জমি বাকী আছে। সে জমি যাদেরদখলে আছে, তাঁদের নামে কোনো মামলা হয়নি বা তাঁদের বিবাদী করেনি। এসময় তিনিমোহব্বত আলী বেপারী আবু তাহেরের নিকট এ জমি বিক্রি করছে বলে একটি দলিলেরডুপ্লিকেট কপি দেখায়। কিন্তু কিনেছেন এরকম কোনো দলিল দেখাতে পারেননি।

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমিআদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করিনি। এ ভবনের কাজ শুরু হয়েছে গত ২১ফেব্রুয়ারী। এজমিতে আমরা এক সঙ্গে ৫ জন ভবন তুলতেছি। তবে আমি ২৮ ফেব্রুয়ারী আদালতেরএকটি কাগজ পেয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.